নিষিদ্ধ বাংলা চটি গল্প; “সুজাতা বৌদি” পড়ুন…ছবিসহ

তখন আমি থাকি বারুইপুরে; সদ্য বাড়ি থেকে বেরিয়ে কলেজ লাইফ! বাঁকুড়ায় সভাপাড়ায় আমার বাড়ি, ইঞ্জিনিয়ারিং কলেজে ভর্তি হলাম সোনারপুরের একটি ইঞ্জিনিয়ারিং কলেজে! মেস লাইফ, একসাথে অনেকজন মিলেই শেখানে থাকি!! বড়ো হচ্ছি তখন সাধারণ ভাবেই বুঝতে শিখেছি সব কিছুই!

কাহিনীর শুরুর আগে জানিয়ে দি আরেকটি কথা, আমার পরিচয়-সুজাতার পরিচয়! সুজাতা বৌদি থাকে আমাদের পাশের বাড়িতেই!! ছিপছিপে কালো গায়ের রঙ, পরণে শাড়ি! মাঝে মাঝেই ছাদে কাপড় শুকোতে আসতো!

Loading...

ঘটনার সূত্রপাত সেদিন আমাদের মেসের এক বন্ধুর জন্মদিন, রাত গড়িয়েছে! দুপুর হয়েছে; রাতে কেক কেটে জন্মদিন পালনের আয়োজন! সবাই পালন করছে রামকিশোর পাতিয়াল নামে বন্ধুর জন্মদিন!!

কেক কাটা খাওয়া দাও শেষ, এমন সময় এক ঝলক চিৎকার শোনা গেলো সুজাতার! ওর বাচ্চা ছেলেকে পড়াশুনো করাতে করাতে হঠাত রেগে গিয়ে চিৎকার করছিলো! সুজাতার বর একটি মাল্টিন্যাশনাল কোম্পানীতে চাকরি করে তাই ফিরতে একটু রাতই হয়! স্বাভাবিক ভাবেই সুজাতা একা থাকে সব কাজ ওকেই সামলাতে হয়!

সেই রাত গড়িয়ে সকাল হলো, রাতে সুজাতা খেয়াল করেছিলো সবই, আমাদের হুল্লোড় কথোপকথন! কিছু বলেনি সেদিন! আমাদের হুল্লোড়ে হয়ত ওর একটু অসুবিধাই হচ্ছিলো! কিন্তু কিছুই বলেনি তখন!! জানিনা আমাদের উপরে রাগ করেছিলো কিনা!!

পরদিন সকালে, শীতের সকাল তাই রোদ পোয়াতে আমরা ছাদেই বসে পড়াশুনো করছিলাম সবাই! পড়াশুনো করছিলাম আর মুড়ি খাচ্ছিলাম!! হঠাৎ ছাদে দেখা মিললো সুজাতা বউদির! আজও কাপড় শুকোতে এসেছে একা! পরনে লাল শাড়ি, রোদের জন্য মাথায় ঘোমটা!

হঠাৎ একটা কাক এসে পড়লো বউদির শাড়ির উপর!! বউদি চিৎকার করে উঠলো! “দূর হ কাক যা যা” সেই দিন প্রথম সুজাতার গলা শুনলাম! কাকের ক্যা ক্যা ডাকের চেপেও কর্কশ গলা!! গোড়া পাড়ার ঘুম উড়িয়ে দিতে পারে ওই ঝগরুটে গলা! বুকের মধ্যে যেন পাথর পড়লো! ফাটা বাঁশের মত গলা দিয়ে কাক তাড়াতে বৌদি নিজের পায়ের চটি ছুড়ে মারলো কাকের দিকে!

নাও বুঝতে পারলে না তো গল্পের মাথামুন্ডু? আমিও বুঝিনি! এটা পায়ের চটির গল্প! অতিরিক্ত হাওয়াসের চক্করে তুমি ভুলেই গেছ আজ এপ্রিল ফুল হওয়ার দিন!! ননভেজ পেজে ননভেজ মিম/জোক্স মেলে; পানু নয়! এতই যখন হাওয়াস তো বিভিন্ন সাইট পাওয়া যায়, সেখানে গিয়ে দেখে ভিডিও দেখে হাল্কা হয়ে আসুন না দাদা!!

আর হ্যা, যাওয়ার আগে কমেন্টে চুপচাপ তোমার বন্ধুকে মেনশন করে যাও! আর এপ্রিল ফুল বানাও! আর হ্যা শেয়ার করতে ভুলো না যেন চুপ চাপ!

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *