যে কোনও কারও সঙ্গে শুতে রাজি এই অভিনেত্রী! পুরুষ হলেই হল…

অনেকের অনেক রকম মনের বিচার, অনেকের থাকে অনেক রকম চাহিদা; সেভাবেই গড়ে ওঠে তাঁর মানসিকতা; সময়ের সাথে অনেক কিছুর পরিবর্তন ঘটে, একাকিত্বে মানুষ অনেক কিছুই করতে পারে।

চার্লিজ থেরন এই অভিনেত্রীর এখন কোন প্রেমিক নেই!নিজেকে একাকীত্ব এর হাত থেকে মুক্তি দিতে যোগ্য মানুষ খুজছেন চার্লিজ থেরন। যে কোনও কারও সঙ্গে প্রেম করার জন্য প্রস্তুত তিনি 

চার্লিজ থেরন

সম্প্রতি এক সাক্ষাত্‍কার তিনি বলেন, ‘আমি চার বছর ধরে সিঙ্গেল রয়েছি। আমি আর একা থাকতে পারছি না। তিনি আরও বলেন, ‘টাকা পয়সা নাম কোনওটাই আমার দরকার নেই। শুধু একটা ভাল মনের মানুষ হলেই হবে।


শেষ সিরিয়াস প্রেম করেছিলেন শন পেনের সঙ্গে শার্লিজ থেরন। বিয়েও করেন তারা। বিয়ের ১ বছরের মাথায় ২০১৫ সালে তাদের বিচ্ছেদ ঘটে। অভিনেত্রী হওয়ার পাশাপাশি তিনি একজন ব্যালে ড্যান্সারও। ১৪ বছর বয়সে তার অভিনয়ে হাতেখড়ি।

অস্কার বিজয়ী অভিনেত্রী চার্লিজ থেরন তার রূপ আর অভিনয়শৈলী দিয়ে এরই মধ্যে স্থান করে নিয়েছেন দর্শক হৃদয়। তবে একবার নছোড়বান্দা এক ভক্তকে পুলিশে সোপর্দ করে তিনি সমালোচিত হয়েছিলেন।

প্রিয় তারকাকে ফুল দিতে গিয়ে এমনই বিপাকে পড়েছেন স্তানিস্লাভ সনসিয়াদেক নামের এক চার্লিজ থেরন-ভক্ত। ভয়ানক কোনো অস্ত্রশস্ত্র নয়, ম্যাড ম্যাক্স: ফিউরি রোড খ্যাত তারকা চার্লিজ থেরনের বাড়ির সামনে তিনি গিয়েছিলেন ফুলের তোড়া নিয়ে। বায়না ধরেছিলেন,স্বয়ং থেরনের হাতে ফুল না দিয়ে তিনি যাবেন না।

বাড়ির অন্য লোকদের শত অনুরোধ সত্ত্বেও স্তানিস্লাভকে নিরস্ত করা যায়নি। ওদিকে অস্কারজয়ী অভিনেত্রীও দেখা করতে নারাজ। বাধ্য হয়ে বাড়ির লোকজনই পরে পুলিশ ডাকেন।

ঘটনা গড়িয়েছিল আদালত পর্যন্ত। যেহেতু রাশিয়ান ভক্তের কোনো বদ মতলব ছিল না, তাই বিচারক তাকে বিনা দণ্ডে মুক্তি দিয়েছেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *