ফুলশয্যার আগের রাতে নুনুতে গরম ছ্যাকা, তারপর যা হলো দেখুন

অ্যারেঞ্জ ম্যারেজের ফাঁদ থেকে মেয়েরা আজ অনেকটাই মুক্ত। কিন্তু তবু আজও আমাদের এই সমাজেই অনেক উঁচু-নীচু জাতপাতের বাঁধাধরা ছক আছে যেখানে আজও মনে করা হয় যে, ১৮ বছর মানেই একটি মেয়ের বিয়ের বয়স হয়ে গিয়েছে। ফলে দাও তাকে বাপের কাকার বয়সী একজনের সঙ্গে বিয়ে দিয়ে। আর যদি পাত্র সরকারি চাকুরে হয় তবে তো কথাই নেই।

ফুলশয্যার রাতের জন্য সবাই মুখিয়ে থাকে, সবারই চাহিদা থাকে এই বিশেষ দিনের উপর। কিন্তু এই দিনে যদি ঘটে কিছু অঘটন? তবে? তেমনি ঘটেছে কল্যানীর সুপ্রিয় নায়েকের। গত পরশুদিন ছিলো তার ফুলশয্যা, কিন্তু তার আগেই অঘটন ঘটিয়ে ডাক্তারের স্মরণাপন্ন তিনি।

Loading...

যে দিনে যার ব্যবহার সেদিনে বাধে তা নিয়ে বিপত্তি। নিজের বিয়ের রিসেপশনের সবার খাওইয়া দাও্যা রান্না নিয়ে নিজে তদারকি করছিলেন তিনি। হঠাত তেল ছিটকে এসে পড়ে তার ধুতিতে। সাথে সাথে আর্ত চিৎকার করে তিনি বেরিয়ে আসেন। এক দুদিনের জন্য যন্ত্রণা থাকলেও ব্যপারটা গুরুতর নয়।

তবে যেদিনে দরকার সেই বিশেষ দিনে যদি সেটা ক্ষতিগ্রস্থ হয় তাই সেটা ভাবা জরুরী।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *